slide show

জানতে গেলে পড়তে হয়, সায়েন্টিফিলিয়া পড়ুন এবং অন্যকেও পড়ার সুযোগ করে দিন 

সূচিপত্র

কল্পবিজ্ঞান

গল্পবিজ্ঞান

বিজ্ঞান নিবন্ধ

পোড়োদের পাতা

বিজ্ঞানের চাঞ্চল্যকর সংবাদ

বৃহস্পতির চাঁদ আই ও র বালিয়াড়ি টিলা রহস্যের কারণ বার করলেন বিজ্ঞানীরা

দীপঙ্কর

                                            

অনেকেই জানেন বৃহস্পতির চাঁদ আই ও র পৃষ্ঠতল উদ্গিরণ করছে এমন সক্রিয় আগ্নেয়গিরিতে ভরা। বৃহস্পতি এবং তার অন্যান্য উপগ্রহদের অভিকর্ষের কারণে আই ও র উপরিতলে যে প্রচন্ড তাপের উৎপত্তি হয় তা এই সক্রিয় আগ্নেয়গিরির সৃষ্টির কারণ। এটা বিজ্ঞানীরা জানতেন। কিন্তু কুড়ি বছর আগে আই ও র এই পৃষ্ঠতলে যখন বালিয়াড়ির মত ছোট ছোট টিলার আবিষ্কার হয় তখন বিজ্ঞানীরা বেশ খানিকটা অবাক হয়ে যান। এর কারণ আই ও র পাতলা ঘনত্বের আবহাওয়ার পক্ষে জোরালো হাওয়া তৈরি করে বালিয়াড়ির মত এমন ছোট টিলা করা অসম্ভব। সেই থেকে এটি বিজ্ঞানীদের কাছে ছিল এক রহস্য। সাম্প্রতিক কালে প্লুটো এবং ৬৭পি নামের ধূমকেতুতে একই ঘটনা পর্যবেক্ষণ করার পরে বিজ্ঞানীরা আবার এর কারণ অনুসন্ধানে নেমে পড়েন।

সম্প্রতি ‘নেচার কমিউনিকেসন’ নামের বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকায় বিজ্ঞানীরা এই রহস্যের  ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তাঁরা দেখেছেন সালফার ডাই অক্সাইডের কঠিনীভূত আবরণের ১০ সেমি  নীচে যে উতপ্ত লাভার স্রোত বয়ে যাচ্ছে তা এই আবরণের কোন কোন অংশকে বাষ্পীভূত করে উতপ্ত বাষ্পের পকেট তৈরি করে। এই পকেটে যখন অনেক বাষ্প জমে তখন তা উপরিতলের কঠিনীভূত আবরণকে ফাটিয়ে দিয়ে বেরিয়ে এসে প্রায় প্রতি ঘণ্টায় ৭০ কিমি বেগে প্রবাহিত হয়। এই হাওয়ায় উড়িয়ে নিয়ে যায় ছোট ছোট ধূলিকণাকে যা তৈরি বালিয়াড়ির মত ছোট ছোট টিলা। নাসার পরিত্যক্ত প্রোব ‘গ্যালিলিও’র নতুন করে বিশ্লেষণ করা তথ্য এই তত্ত্বকে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

জীবন্ত রোবট জেনোবট

ড. জয়শ্রী পট্টনায়ক

                                            

রোবট শুনলেই আমরা যান্ত্রিক কিছু ভাবি। কিন্তু রোবটের অর্থ অন্য ভাবে ধরা যেতে পারে। রোবট হল এমন কিছু যা মানুষের হয়ে নিজের মত করে কাজ করে। ২০২০ সালের প্রথমদিকে আমেরিকার ভার্মন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা তৈরি করেন জীবন্ত রোবট। আফ্রিকার এক ধরনের ব্যাং (জেনোপাস লেভিস) - এর বিশেষ কোষের (stem cells) জিন অপরিবর্তিত রেখে এক মিলিমিটারের কম মাপের (প্রায় ০.০৩৯ ইঞ্চি) মাইক্রো রোবট তৈরি করা হয়। জেনোপাস লেভিস থেকে এই রোবটের উৎপত্তি, তাই এর নাম জেনোবট। বিজ্ঞানীদের কথায় জেনোবট পৃথিবীর প্রথম জ্যান্ত রোবট, তাই একে অরগ্যানিক রোবট ও বলা যেতে পারে। এরা বিনা খাদ্যে অনেক দিন বাঁচতে পারে। জখম হলে নিজের ক্ষত নিজে সারাতে পারে। এমনকি মানুষের শরীরের মধ্যে ঢুকে নির্বিঘ্নে ঘোরাফেরা করতে পারে। সম্প্রতি অ্যামেরিকার বৈজ্ঞানিকরা জানিয়েছেন যে এই জীবন্ত রোবট গুলি সন্তানের জন্ম দিতে পারে। এদের প্রজনন ক্ষমতা একেবারে ভিন্ন, প্রাণীর বা উদ্ভিদের সঙ্গে কোন মিল নেই। এরা তাদের শরীর থেকে আলগা হয়ে যাওয়া কোষগুলি একত্রিত করে নতুন জেনোবট-এর জন্ম দিতে পারে।        

এখন প্রশ্ন হল এদের কাজ কী?                 

বৈজ্ঞানিকরা বলছেন আগামী দিনের আধুনিক চিকিৎসা এবং পরিবেশ রক্ষায় এদের বিপুল কর্ম ক্ষমতা থাকবে। সেল বায়োলজি বা বায়ো-ইঞ্জিয়ারিং গবেষণায়, যে কোন রোগের উৎস সন্ধান ও নিরাময়ে কাজে সাহায্য করবে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে, মানুষের শরীরের ভেতর ঢুকে ঔষধ সরবরাহ ও ধমনী পরিস্কার করে রক্ত সঞ্চালন সহজ করার মত কাজ করতে পারবে। পরিবেশ রক্ষায়, নদী বা সমুদ্র থেকে তেজস্ক্রিয় বা মাইক্রোপ্লাস্টিক বজ্য নিমেষেই পরিস্কার করে ফেলবে।


  • সম্পাদক – ডঃ দীপঙ্কর বসু
  • সহকারী সম্পাদক – দেবাশীস দে এবং ডঃ শ্রুতিসৌরভ বন্দ্যোপাধ্যায়
  • উপদেষ্টা মণ্ডলী – সুজিতকুমার নাহা, পিনাকীশঙ্কর চৌধুরী, কমলবিকাশ বন্দ্যোপাধ্যায়, ডঃ জয়শ্রী পট্টনায়ক, সৌম্যকান্তি জানা, গার্গী বসু 
  • পত্রিকার নামকরণ – ডাঃ অনন্যা বসু
  • পত্রিকার নাম অলংকরণ এবং প্রচ্ছদ – সংহিতা দে
  • কারিগরি সহায়তা – DWEB CONSULTANTS PVT. LTD.
Subscribe Free Newsletters
E-Mail:
Refer your Friend
Tell a Friend
Follow us
Copyright © 2020. www.scientiphilia.com emPowered by dweb